শিশুদের সরলতা আমায় বরাবরই মুগ্ধ করে

Esteem Soft Limited 17-Apr-2022 Last Updated: 17-04-2022 12:38 PM

শিশুদের সরলতা আমায় বরাবরই মুগ্ধ করে, আর আমার ভেতরে একটা ছোট্ট শিশু বোধহয় বাস করে। শিশুদের সাথে মিশে যেতে আমার কোন সমস্যা হয় না। তারাও আমাকে নিজের কেউ মনে করে । আমায় দেখলে হাসে, আমার কোলে আসে, মনে হয় ওরা আমায় ভালোবাসে।

আর যে সকল পাহাড়ী শিশুরা এমন organic natural পরিবেশে থাকে, natural খাবার খায়, প্রকৃতির সাথে পাহাড়ের কোলে যাদের বসবাস, তাদের ব্যাপারে আমার দুর্বলতা বেশী, আমি এদের গভীরভাবে পর্যবেক্ষন করি। এদের প্রানশক্তি আমায় মুগ্ধ করে, প্রেরনা দেয়, এরা হাসতে হাসতে,খেলতে খেলতে, দৌড়াতে দৌড়াতে পাহাড় বেয়ে ওঠে, নদীতে ঝাঁপ দেয়, গাছের ডালে উঠে দাপাদাপি করে, দুরন্তপনার শৈশব এরাই উপভোগ করে।

অন্ধকার নামলেই এরা ঘুমের কোলে লুটিয়ে পড়ে, ভোর হওয়ার সাথে সাথে তারা ঘুম থেকে উঠে পড়ে, সূর্যের তেজ যত বাড়ে, এদের উচ্ছ্বলতা উদ্যোম ততই বাড়ে। এদের এখানে বিদ্যুত নেই, নেই মোবাইল ডিভাইস, নেই রাত জাগার উপকরন।প্রকৃতির সাথে প্রকৃতির নিয়মে এরা চলে ।

অপরদিকে, শহরে বেড়ে ওঠা শিশুদের কথা একটু যদি চিন্তা করি, খুবই কস্ট লাগে। Mobile Device এ আসক্তি Fast Food ছাড়া খেতেই চায় না, ব্যায়াম বা কায়িকশ্রম কোনটাই নেই। বিনোদন, পড়াশোনা, যোগাযোগ সবই Mobile বা Tablet/Laptop এ, না আছে প্রকৃতির সাথে সম্পর্ক, না আছে রাতে Early ঘুমাতে যাওয়া, বা ভোরে ঘুম থেকে ওঠা। বিনোদন মানেই Processed Food খাওয়া, এদের শৈশব আসলেই কি আছে? পড়াশোনার চাপে এদের শৈশব জীবনটা যেন শেষ হয়ে গেছে।

আমরাই তাদের খেলার মাঠ দিতে পারছি না, রাত জাগার অভ্যাস তারা আমাদের বড়দের থেকে শিখছে। শৈশবে কত বৃস্টিতে ভিজেছি, কাদায় মাখামাখি হয়ে ফুটবল খেলেছি, পড়ার চেয়ে স্কুলে গিয়ে খেলার আনন্দটা ছিল অনেক বেশী, আনন্দ নিয়ে শিখেছি।

এখন অনেক বাচ্চাই আমার কাছে নিয়ে আসে, অল্প বয়সেই যাদের Fatty Liver এবং Insulin Resistance( IR). অথচ তারা জীবনের কঠিনতম সময়ে এখনও পা রাখেনি। আমার খুব চিন্তা হয় এদের ভবিষ্যৎ ভেবে।

বাচ্চাদের জন্য আমার পরামর্শ খুবই সহজ, Natural যে কোন খাবার তারা খাবে (যাদের IR তারা বাদে) সন্ধ্যার পর Mobile, Laptop, TV সহ সকল network থেকে দুরে থাকবে, ১০টার ভেতর ঘুমাতে যাবে, ঘুমানোর তিন চার ঘন্টা পূর্বে রাতের খাওয়া শেষ করবে। ভোরে উঠবে, সকালে সূর্য্যের আলোয় একটু দৌড়ঝাপ করবে বা সাইকেল চালাবে , ক্ষুদা লাগলে খাবে, বিকালে বাইরে খেলাধূলা করবে ব্যাস এটুকু মানলেই তারা অনেক ভালো থাকবে, তবে অবশ্যই Processed Food থেকে এদের দুরে রাখতে হবে।

পাহাড়ী বাচ্চাদের তেমন কোন রোগ নেই, তাদের মোড়ে মোড়ে Fast Food বা Pharmecy কোনটাই নেই। সুস্হ থকতে হলে আমাদের সেই ছোটবেলা আবারও ফিরিয়ে আনতে হবে, না হয় বৃক্ষহীন নগরজীবনের বিষাক্ত বাতাস এবং বিষাক্ত খাবার আমাদের অনেক শিশুরই প্রান কেড়ে নিবে।

আজকের শিশু আগামীর স্বপ্ন, এদের সুস্বাস্হ্যের জন্য চলুন এখনই সচেতন হই।